মোট দেখেছে : 247
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

ধারাবাহিক প্রামাণ্যচিত্র ‘ফিরে আসি'

কবি, নির্মাতা রানা হোসেন দীর্ঘদিন ধরে সুস্থ ধারার নাটক, টেলিছবি, বিনোদনমূলক ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান নির্মাণ করে চলেছে। সম্প্রতি ৫২টি প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের প্রকল্প হাত দিয়েছেন। প্রমাণ্যচিত্রের তথ্য ও গবেষণার কাজ শেষ করেছে দুই-তিন বছর ধরে। নিজ প্রতিষ্ঠান মৃত্তিকা প্রোডাকশনের ব্যানারে নির্মিত হবে।

প্রামাণ্যচিত্র অনুষ্ঠানের বিষয়গুলো হলো নদী ভাঙ্গন, মৃৎশিল্প, প্রাচীন দ্বীপ জেলা ভোলার তথ্য চিত্র, ছিন্নমূল মানুষদের জীবন, বাংলাদেশের রূপ ঐতিহ্যবাহী স্থান, প্রকৃতি, ইতিহাসের নগরী ইত্যাদি বিষয়ের উপর সাজানো হবে এই ধারাবাহিক প্রামাণ্যচিত্র ‘ফিরে আসি'।

রানা হোসেন পরিচালনা করেছে ছায়াছবির গান নিয়ে ‘সূরের বেলা' অনুষ্ঠান ১৯৯৫, গান নিয়ে অনুষ্ঠান ‘কথাকলি' ১৯৯৭, ছায়াছবির গান নিয়ে ‘গান সম্ভার', ১৯৯৭, প্যাকেজ নাটক ‘স্রোত' ১৯৯৮, ভিডিওফিল্ম ‘নদীর কান্দন' মুক্তি ও প্রদর্শিত ২৯ জুলাই ২০০১ কেন্দ্রীয় কচি-কাঁচার মেলা চারবার, এ দেশের জনপ্রিয় কবিদের নিয়ে আবৃত্তি সিডি ‘ভালোবাসার পংক্তিমালা' ২০০৩, একুশে ফেব্রুয়ারির বিশেষ অনুষ্ঠান এটিএন বাংলার ‘আলোর দিগন্ত' ২০০৩, ঢাকার উপর প্রমাণ্যচিত্র ‘অবরুদ্ধ নগর' ২০০৩, বন্যা ও নদীর উপর প্রমাণ্যচিত্র ‘হৃদয়ের বাংলাদেশ' ২২ সেপ্টেম্বর ২০০৪ প্রদর্শিত বিশ্ব সাহিত্যকেন্দ্রে, শিশুতোষ টেলিছবি ‘আলো অাঁধারের জীবন' ২০০৫, কণ্ঠশিল্পীদের নিয়ে ‘মেঘে ঢাকা আকাশ' ২০০৬, বিনোদন নির্ভর ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান ‘প্রতিকৃতি', মৃৎশিল্পীদের উপর প্রামাণ্যচিত্র ‘আমাদের মৃৎশিল্প' ২০০৬, সঙ্গীত বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘সুখ দুঃখের পদাবলী' ২০০৮, সঙ্গীত বিষয়ক অনুষ্ঠান ‘সুর ছন্দে আমাদের গান' ২০০৯, টেলিছবি ‘জীবনের খেলা ঘর' ২০১০, হাসির নাটক ‘আনন্দ বাড়ি সমাচার' ২০১১ চলচ্চিত্র ‘ফুলকিমালা।'

পরিচালক রানা হোসেন আশা করেন ‘ফিরে আসি' প্রামাণ্যচিত্র অনুষ্ঠানটির মাধ্যমে দেশের অনেক চেনা-অচেনা স্থান, ইতিহাস, বাংলাদেশের সৌন্দর্য প্রকাশ পাবে। টিমে যারা রয়েছে- আজগর আলী, যুগান্তর চাইনিজ, হুমায়ুন কবির বর্ষণ, বাইজিদ, জিনহা, সুজন। সুন্দরবন দিয়েই শ্যূটিং করা হবে।