মোট দেখেছে : 119
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

সাতক্ষীরার নলতায় জাতির জনকের জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

নলতায় জাতির জনকের জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‌্যালী

তরিকুল ইসলাম লাভলু : হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯ তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস  উপলক্ষে রবিবার সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার নলতা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ, অঙ্গ সংগঠন এবং সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উদ্দ্যেগে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, জন্ম দিনের কেক কাটা পরবর্তী বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার সকাল সাড়ে ৮ টা থেকে নলতা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্য্যালয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন উপলক্ষে কেক কাটা, বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভায় কালিগঞ্জ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ আতাউর রহমান, নলতা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভপতি মোঃ আনিছুজ্জামান খোকন, সহ-সভাপতি মোঃ তারিকুল ইসলাম,সাধারণ সম্পাদক মোঃ আবুল হোসেন পাড়, এ্যাড. আব্দুল জব্বার, ইব্রাহিম খলিল, কালিগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জি.এম সাইফুল ইসলাম, কালিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ শাহরিয়ার, নলতা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি মোঃ সাইফুল ইসলাম, নলতা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি মোস্তাফী সুজন, সাধারণ সম্পাদক মামুন হোসেনসহ আওয়ামীলীগ ও সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৯৯ তম জন্ম বার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উপলক্ষে রবিবার সকাল ৯ টায় নলতা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের কার্য্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, জাতিয় সংগীতের সাথে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশণ পরবর্তী আলোচনা সভা ও দোয়া অনুষ্টিত হয়েছে।

এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা বলেন- ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহন করেন জাতির জনক বঙ্গজন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। শৈশব থেকেই তিনি ছিলেন চঞ্চল ও পরোপকারী। স্কুল জীবন থেকেই তার মধ্যে নেতৃত্তের গুনাবলী, আন্দোলন ও সংগ্রামের মধ্যে বেড়ে ওঠা এই যুবক বাংলার মানুষকে ও দেশকে মুক্ত করতে স্বাধীনতার ডাক দেন। ৭ মার্চে এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, জয় বাংলা, ১৯৭১ এর ২৫ মার্চ রাতে পাকিস্থানি হায়েনারা ঝাপিয়ে পড়েন মুক্তিগামী বাংলার মানুষের উপর। দীর্ঘ ৯ মাস যুদ্ধের পর মুক্তিগামী মানুষের মুক্তি হয় ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে। এরপর বাংলাদেশের প্রেসিডেন্ট হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। চক্রান্ত কারিদের চক্রান্ত চলতেই থাকে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধুকে শ’পরিবারে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।

আরো দেখুন

আরও সংবাদ