মোট দেখেছে : 519
প্রসারিত করো ছোট করা পরবর্তীতে পড়ুন ছাপা

একটি নিস্পাপ অসহায় মৃত্যুর বিবেকী দংশনের দায় ও আমাদের ভবিষ্যৎ ?

কিউবার প্রয়াত অবিসংবাদিত কমিউনিজম রাষ্ট্রনায়ক ফিদেল ক্যাষ্ট্রোর ঘনিষ্ঠ সহচর বিপ্লবী চে গুয়েভারা বলতেন, "তুমি যদি প্রতিটি অবিচারের বিরুদ্ধে জ্বলে উঠো,তাহলে তুমি আমার একজন সহযোদ্ধা "

আজ পরিবহন সেক্টরের ডাকা ধর্মঘটের প্রথম দিনে ফেসবুকের ও মিডিয়ার কল্যানে দেখা গেল,পোড়া ও কালো মুবিল মাখামাখি, ভাংচুর,সদ্যজাত অসহায়ত্বের প্রাচীরঘেরায় একটি শিশু মৃত্যুর নিদারুন যন্ত্রণা !

আসলে প্রতিদিনই দেখছি আর দেখছি?

একটু পরে ভুলে যাচ্ছি? যারা ক্ষতিগ্রস্হ (ভিকটিম),পরিবার পরিজন ছাড়া এখন হা পিত্যেস পর্যন্ত কেউ এ সব অমানবিকতায় করেনা? মনে করছি স্বাভাবিক !

একমাত্র দায়িত্বের খড়গটার নিষ্ঠুর ধড়ের বিচ্ছিন্নতার ইন্দ্রজালে আটকা পরে পুলিশ তথা আইনশৃংখলা বাহিনী।

হিংস্র নারকীয় আচরনের পৈশাচিক থাবার কথিত শ্রমিক কে শেষ পর্যায়ে নেতৃবৃন্দ স্বীকার করেননি।নেতাদের একটু করণীয় ছিলোনা ?

তাঁরা তাৎক্ষনিক প্রতিবাদে প্রকট হয়ে শ্রমিক নামধারী দেশের আইন শৃংখলা,শান্তি ভংগকারী এমন দূর্বত্তের হাত হতে এহেন জঘন্যতম কাজ নিবৃত্ত করতে? 

একজন প্রকৃত শ্রমিক কোনোদিনই এতো অমানবিকতা দেখাতে পারেনা!!কারন তারা ও রক্তমাংসের গড়া, এ দেশেরই সন্তান।বুর্জোয়া দস্যিপনায় কোনো কালো হাতের ইশারায় তারা ক্রীড়নক হতে পারেনা?রাষ্ট্রের সিদ্ধান্তগুলো হয়,জনগনের কল্যানের তাগিদে।দেশের কল্যানে জবাবদিহিতায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

এ ক্ষেত্রে পরিবহন শ্রমিক নেতারা দেশের স্বার্থে জনগনের স্বার্থে,নিজের আত্নীয়স্বজন,পরিবার পরিজনদের স্বার্থে শ্রমিকদের আর উস্কানি না দিয়ে আইনের যথাযথরূপে সবাইর দায়িত্ব ও কর্তব্য বোঝালে দেশের ও দশের মংগল হবে।

আইন সবাইর জন্য সমান।জবাবদিহিতায় এখন দেশের প্রায় প্রায়োগিক সেক্টর/ প্রতিষ্ঠান কাজ করে চলেছে।আইন শৃংখলা বাহিনী আমি মনে করি,এখন প্রতিটি ক্ষেত্রেই জবাবদিহিতার অগ্রভাবে আছে।জনবান্ধব পুলিশিংয়ের কল্যানে প্রতিক্ষনের জবাবদিহিতায় প্রতিটি কমিউনিটিতে অবিরত নতুন নতুন প্রয়োগের ধারাবাহিকতায় কাজ হচ্ছে।

আজ জনবান্ধব পুলিশিংয়ের ধারাবাহিকতায় ও জবাবদিহিতায় উন্নত বাংলাদেশ গড়ার কাজে সবাইকে জবাবদিহিতার মধ্যে অবশ্যই রাষ্ট্রের স্বার্থে আসতে হবে। কেননা্ গুঁটিকয়েক ভুঁইফোড় চরম স্বার্থপর দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রকারী যাচ্ছেতাইদের স্ব-স্ব অবস্হান হতে প্রতিরোধ করলে আজকের এ বিভীষিকাময় পরিস্হিতির এ দেশে আর উদ্ভব হবেনা এবং বিবেকী দংশনের দায় হতে আমরা ও ভবিষ্যত প্রজন্ম মুক্তি পাবো।


লেখক: রাজীব কুমার দাশ,ইন্সপেক্টর, বাংলাদেশ পুলিশ । 

আরো দেখুন

আরও সংবাদ